Breaking News
Home >> Breaking News >> কাটোয়ার খ্যাপামা নামের পাটকাটির মশালের আলোয় প্রতিমা বিসর্জনের রেওয়াজ

কাটোয়ার খ্যাপামা নামের পাটকাটির মশালের আলোয় প্রতিমা বিসর্জনের রেওয়াজ

গৌরনাথ চক্রবর্ত্তী,কাটোয়া: থিমের অভিনবত্ব থেকে চারদিকে এখন বারোয়ারি পুজোর রমরমা।এরই মধ্যে এখন অন্য ছবি কাটোয়া থানার ঘোড়ানাশ গ্রামের রায় পরিবারের দুর্গা পুজোর জনপ্রিয়তা সব।রায় পরিবারের পুজো এলাকায় “খ্যাপামা”-এর পুজো বলে খ্যাত।খ্যাপা মা নামকরণ কী করে হল,তার সঠিক ব্যাখ্যা মেলে না।

তবে গ্রামবাসীদের কাছে খ্যাপা মা খুবই জাগ্রত। মনস্কামনা পূরণের আশায় অনেকেই তার কাছে মানত করে।গ্রামবাসিন্দারা বললেন,রায় পরিবারের পুজো হলেও,খ্যাপা মা এখন গ্রামের সার্বজনীন পুজো।সেইজন্য প্রতিমা বিসর্জনের সময় বাহক ঠিক করতে হয় না।

মাকে কাঁধে নেওয়ার জন্য গ্রামবাসীদের মধ্যে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়।পাটকাঠির মশালের আলোয় প্রতিমা নিয়ে বাহকরা দৌঁড়াতে দৌঁড়াতে বিসর্জন দিতে যান ব্রহ্মাণী নদীতে। এই রীতি চলে আসছে দীর্ঘদিন ধরে।

রায় পরিবারের প্রবীণ সদস্য মহিম রায় বললেন,প্রায় ৩০০ বছর আগে নবাব আলিবর্দি খাঁ-র আমলে আমাদের পূর্বপুরুষ ভবানন্দ রায় এখানকার দেওয়ান ছিলেন।আমরা পূর্বপুরুষদের কাছে জানতে পারি,তিনিই এই একচালার পুজো প্রতিমা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। মহালয়ার পরেরদিন থেকে প্রতিপদ তিথি থেকে ঘট এনে পুজো আরম্ভ হয়।সেদিন ছাগও বলি হয়।সেই রীতি থেকে আমাদের পুজো দশদিনের। দশমীতে পুজো শেষ হয়।

সপ্তমী,অষ্টমী ও নবমীতে একটা করে ছাগ বলি হয়।গ্রামবাসীরা নবমীর দিন মানত করা জিনিস উৎসর্গ করেন।আগে মোষ বলি দেওয়ার প্রথা ছিল।বর্তমানে মোষ বলি হয় না। এমনিতেই নানান ইতিহাস রয়েছে এই প্রতিমাকে ঘিরে।

একটা প্রাচীন প্রথা রয়েছে খ্যাপা মা যাতে পালাতে না পারে তারজন্য খ্যাপা মায়ের কোমরে মোটা রশ্মি দিয়ে মন্দিরের পিছনে দেবদারু গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখার প্রাচীন রীতি এখনও রয়েছে।আজ মহাসপ্তমীতে মায়ের মন্দিরে পুজো শুরু হল।
ঘোড়ানাশ গ্রামের বাসিন্দারা জানালেন,খ্যাপা মায়ের পুজোর বড় আকর্ষণ হল বিসর্জন।এই গ্রাম থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে চাণ্ডুলী গ্রামের কাছে ব্রহ্মাণী নদীতে বিসর্জনের সময় গ্রামবাসীরা পথের দুধারে সারিবদ্ধভাবে পাটকাঠির মশাল জ্বালিয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন। সেই মশালের আলোয় ভক্তরা একচালার প্রতিমাকে নির্দিষ্ট পথে দৌড়াতে দৌড়াতে নিয়ে যান।

বিসর্জনের আগে প্রতিমা কাঁধে নেওয়ার জন্য ঘোড়ানাশ,মুস্থূলী,আমডাঙ্গা,একডেলা,জগদানন্দপুর,আখড়া,নলাহাটি প্রভৃতি গ্রামের হাজার হাজার বাসিন্দা ছুটে আসেন।

এছাড়াও চেক করুন

জমিতে জল দেওয়া নিয়ে বিবাদের জের, আক্রান্ত মা ও ছেলে

মনিরুল হক, স্টিং‌নিউজ, কোচবিহারঃ চাষের জমিতে জল দেওয়াকে কেন্দ্র করে দুই পরিবারের মধ্যে বিবাদ তুফানগঞ্জে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.