Breaking News
Home >> Breaking News >> না ফেরার দেশে চলে গেলেন নদিয়ার চাপড়ার কবি আমজাদ আলি হালসানা

না ফেরার দেশে চলে গেলেন নদিয়ার চাপড়ার কবি আমজাদ আলি হালসানা

প্রদ্যুৎ দত্ত, স্টিং নিউজ, চাপড়া, নদিয়া: মাটির ভাষা, মাটির গন্ধ তাঁকে ঘিরে রেখেছিল। গ্রাম বাংলার চিত্রময়তার মাঝে বেড়ে উঠতে উঠতে লেখালিখি শুরু করেছিলেন। যে লেখা নি:শ্বাস চলে যাওয়ার আগে পর্যন্ত তিনি আগলে রাখেন। রঙিন শহর, দুনিয়া থেকে শতযোজন দূরে থেকেই নিপাট আটপৌরে জীবন অতিবাহিত করেছেন। এমন সময়েই গ্রাম মফস্বলের আঙিনা পেরিয়ে বহুদূরে বিচরণ করেছে কবি আমজাদ আলি হালসানার কবিতার শব্দ। কিন্ত তাঁর লেখনী যতটাই শক্ত ছিল, ঠিক ততটাই হাড়হিম করা মারণব্যাধি ক্যান্সার বাসা বেঁধেছিল শরীরে। অসম্ভব যন্ত্রণার পর মাত্র ৫৮ বছর বয়সে নদিয়ার চাপড়ার শ্রীনগর গ্রামের কবি আমজাদ আলি হালসানার কলম থেমে গেল। বৃহস্পতিবার বিকাল ৪:৪০ মিনিট নাগাদ দুনিয়া ছেড়ে বিদায় নিলেন।

সম্প্রতি তাঁর লেখা, তবুও প্রয়াস প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত ‘গ্রাম বাংলার আঞ্চলিক শব্দ ও প্রবাদ’ নজর কাড়ে। আর এখানেই সার্থকতা। গ্রামের আঞ্চলিক শব্দ একত্রিত করে বই বের হয়েছিল। এই কাজ সহজ ছিল না। শুধুমাত্র নিজের অত্যন্ত পরিশ্রম ও পাণ্ডিত্যের জন্যই সম্ভব হয়েছে।

এছাড়া তিনি লিখেছেন মাটির রস, কাঁচ বৃষ্টির বন্যা, জীবনপুরের যাত্রী, সুখ যেন পিতার দেওয়া ইত্যাদি গ্রন্থ লিখেছেন। এছাড়া দৈনিক কলম, নতুন গতি, বুলবুল, বিশ্ব সাহিত্য বাংলা, সহ বহু পত্র পত্রিকায় লিখেছেন। তাছাড়া নিজেও লিটল ম্যাগাজিন প্রকাশ করতেন। তাঁর মৃত্যতে সাহিত্যমহলে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। তিনি বেশ কিছুদিন মুম্বইয়ের একটি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। কবি আমজাদ আলি হালসানা নেই। কিন্তু রয়ে গেল কবিতার ভাণ্ডার। লেখা ছেড়ে তাঁর অজানা উদ্দেশ্যে চলে যাওয়া, এটাই তো যবনিকা। কবি আমজাদ আলি হালসানা আর ফিরবেন না।

এছাড়াও চেক করুন

কলকাতার এনআরএস হাসপাতালে জুনিয়ার চিকিৎসকদের কর্মবিরতি না মিটতেই, চিকিৎসা কর্মীকে মারধরের অভিযোগ দক্ষিন দিনাজপুর জেলা হাসপাতালে

শিবশংকর চ্যাটার্জ্জী, স্টিং নিউজ, দক্ষিন দিনাজপুর: কলকাতার এনআরএস হাসপাতালে জুনিয়ার চিকিৎসকদের কর্মবিরতি না মিটতেই চিকিৎসা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.