Breaking News
Home >> Breaking News >> বিজেপি সাংসদই মোদীকে বললো ‘চোর’

বিজেপি সাংসদই মোদীকে বললো ‘চোর’

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজঃ ব্রিগেডে ‘ইউনাইটেড ইন্ডিয়া’ মঞ্চ থেকে তখন শুরু হয়ে গিয়েছে দেশের বিরোধী দলের নেতাদের বক্তব্য প্রেস। হাওড়া স্টেশনে ট্রেন থেকে নেমে হন্তদন্ত হয়ে ছুটছেন মধ্যবয়সী এক ব্যক্তি। রেলের নিরাপত্তা রক্ষী আটকাতেই ছাড়ুন তো মিটিং যাচ্ছি টিকিট কাটা আছে। ব্যান্ডেলে ট্রেন লেটে আসল কেন বলুন আগে প্রশ্ন করবার মধ্য দিয়ে এগিয়ে চলেছেন বড় ঘড়ির দিকে। লঞ্চ ঘাটে পৌঁছে দেখেন সাময়িক ভাবে লঞ্চ পরিষেবা বন্ধ। হাওড়া ব্রিজ পার করে বড় বাজার চত্বরে স্কিনের সামনে থমকে যান। কিছুটা তাকিয়ে আবার চলতে থাকেন লক্ষ্য ব্রিগেড।

১৯-এর ব্রিগেড ইতিহাসের হাতছানি। মঞ্চ জুড়ে রাজনৈতিক চমক। মঞ্চের ভিভিআইপি জোনে দেশের ২৪-২৫ টি বিরোধী দলের নেতা-নেত্রী উপস্থিত। লক্ষ লক্ষ মানুষের ভিড় দেখে আগত অতিথিদের চোখেমুখে দিদির প্রশস্তি। কেন্দ্রে বিজেপি কিভাবে বিদ্বেষমূলক রাজনীতি করছে তার একটা জ্বলন্ত বক্তব্য প্রকাশিত হচ্ছে বিভিন্ন জনের বক্তব্যে। সঞ্চালনার সমস্ত দায়িত্ব পালন করছেন বাংলার দিদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গ্রাউন্ড জিরো থেকে সরাসরি তা পৌঁছে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে।

দিল্লির ঐতিহাসিক রামলীলা ময়দান না হলেও শরদ পাওয়ার, মল্লিকার্জুন খড়গে, যশবন্ত সিনহা, কেজরিওয়াল, অখিলেশ যাদব, হার্দিক পটেল দের কাছে ব্রিগেড ঘরের মাঠ হয়ে উঠেছিল। কেন্দ্রের বিরুদ্ধে একাধিক বিষয় নিয়ে মানুষের ক্ষোভের সীমা যে বাংলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়েছে সে দৃশ্য দেশের বিরোধী নেতারা বুঝে গিয়েছেন। হিন্দি বক্তব্যে মোদীজি, অমিত শাহদের আক্রমণের ধার যত বেড়েছে লাখ লাখ জনতা শিড়া উঁচিয়ে চিৎকার ততই ঝড়ে পড়েছে। অখিলেশ যাদবের বিরুদ্ধে ইডি খাতা খুলেছে। সে কথা আগেই জানাজানি হয়েছে। এ দিন বক্তব্যে অখিলেশ জানান, ওঁনার বিরুদ্ধে বললে নিজস্ব এজেন্সি চলে আসছে। সিবিআই, ইডি দেশের দুই তদন্তকারী সংস্থা নিয়ে সরব অনেক আগেই হয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার ব্রিগেডের মঞ্চে অখিলেশ সরব হলেন। একাধিক বিষয় নিয়ে ঘরের দোরগোড়ায় ইডি। তল্লাশি চালানো হয়েছে একাধিক সংস্থায় বলে খবর।

অর্থনৈতিকভাবে ক্রমশ পছিয়ে পড়ছে দেশ একথা যখন বক্তব্যে ফুটে উঠছে বাবুঘাট, ইডেনের অপর প্রান্ত, মেয়ো রোড সহ বিভিন্ন এলাকা দিয়ে থিকথিকে মাথা শেষ বারের মত মঞ্চের কাছে যাবার চেষ্টায়। রত্না বাগ এসেছেন কালনা থেকে। স্বামী সোনার কাজ করতেন দিল্লিতে। কাজ না থাকায় ফিরে এসেছেন দু বছর হতে চলল। এখন একটি দোকানে কর্মচারীর কাজ করেন। ছেলে-মেয়ের পড়াশোনা বন্ধের জোগাড়।

রত্না স্বনির্ভর গোষ্ঠী থেকে ব্যাগ তৈরি শিখেছেন। কিন্তু সেলাই মেশিন কিনতে পারছে না। স্বামীর সাথে এসেছেন ব্রিগেড। কিন্তু পৌঁছাতে না পেরে জয়েন্ট স্ক্রিনের সামনে দাঁড়িয়ে দিদি কে দেখছেন। ‘একমাত্র উনি আছেন আমাদের জন্য। দিল্লি থেকে ও ফিরে আসলো। সংসার চলবে কিভাবে জানতাম না। দিদির কাছে জানাতে চাই একটা সেলাই মেশিনের কথা।’ লক্ষ লক্ষ মানুষের ভিড়ে স্বামীর সাথে রত্নার এই কথা আদৌ পৌঁছাবে!

এপ্রিল মাস নাগাদ নির্বাচন কমিশন-এর পক্ষ থেকে ভোটের নির্ঘন্ট প্রকাশ পেতে পারে। তার আগে বিরোধী জোট গঠনের প্রক্রিয়া শুভারম্ভ করলেন দেশের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও এ দিন মঞ্চ থেকে একাধিক নেতা বলেন, কে প্রধানমন্ত্রী হবে তা সিদ্ধান্ত নেবে জনতা। প্রসঙ্গত বিজেপি’র পক্ষ থেকে ক’দিন আগে বলা হয় বিরোধীদের কে প্রধানমন্ত্রী হবে তার সিদ্ধান্ত আগে নেওয়া হোক। পরে সরকার গঠনের কথা বলা হবে। কিন্তু যে ভাবে সপ্তাহান্তে বিরোধী শিবির এককাট্টা হল তাতে করে কেন্দ্রে সরকারের প্রতি সম্যক ধারনা প্রকাশ পেল। একিসাথে বিজেপি’র উপর মস্ত চাপ তৈরির কৌশল রচণা করে দেওয়া হল।

রাজ্যের তৃণমূল কংগ্রেসের নেতারা বলে থাকেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ডাক দিলে দুটো ব্রিগেড ভরে যায়। শনিবার ব্রিগেডে প্রায় দশ লক্ষ মানুষের সামনে একমঞ্চে বিরোধীদের সামিল করে ক্ষমতার জাগির করে দিলেন। অখিলেশ এত মানুষের ভিড় দেখে অভিভূত। তিনি বলেন, বাংলা থেকে আজ যা শুরু হল। গোটা দেশে এ বার চলবে।

যদিও ওর বক্তব্যের আগে অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নায়ডু অমরাবতীতে পরবর্তী বিরোধী সভার জন্য ইচ্ছে প্রকাশ করেন। মমতা সাদরে তা গ্রহণ করেন। পরে অরবিন্দ কেজরীবাল দিল্লিতে একি সভা করবার প্রস্তাব রাখেন। এ দিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যা শুরু করলেন আগামী দিনে দেশের প্রায় প্রতিটি রাজ্যে সংগঠিত হবে। তা হলে বিজেপিকে দেওয়া মমতার ১২৫ তত্ত্ব সাফল্য আনবে।

তবে এদিন মোদীকে সেরা আক্রমণটা করেছেন বিজেপি সাংসদ শত্রুঘ্ন সিনহা। তিনি মোদীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, “চৌকিদার চোর হ্যায়”।

ঘড়ির কাঁটা চারটের ঘরে। শেষ বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেন্দ্রের মোদী সরকারের অপশাসন নিয়ে তীব্রভাবে বাংলায় খেদ ঝড়াচ্ছেন। কোথায় কি একটি মানুষেরও জায়গা ছেড়ে উঠে বাস ধরবার তাড়া নেই। হয়তো দেশের অতিথিদের সামনে দিদিকে প্রধানমন্ত্রী করবার ইচ্ছে জাগিয়ে তোলার বাসনা।

এছাড়াও চেক করুন

প্রচারের শেষ দিনে বালুরঘাটে তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষের সমর্থনে মহা মিছিল

শিবশংকর চ্যাটার্জ্জী, দক্ষিন দিনাজপুরঃ আগামী ২৩ শে এপ্রিল বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের নির্বাচন তার আগে আজই …

Leave a Reply

Your email address will not be published.