Breaking News
Home >> Breaking News >> ঝাড়গ্রামের সভায় বিজেপিকে যাযাবর পার্টি বলে কটাক্ষ পার্থ চ্যাটার্জীর

ঝাড়গ্রামের সভায় বিজেপিকে যাযাবর পার্টি বলে কটাক্ষ পার্থ চ্যাটার্জীর

কার্ত্তিক গুহ, ঝাড়গ্রাম: বিজেপীর কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃীতিইরানির সভার পরেই মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে ঐ একই জায়গায় পাল্টা সভা করেন পার্থ চট্টপাধ্যায় | ঝাড়গ্রামের সভায় বিজেপিকে যাযাবর পার্টি বলে কটাক্ষ করে পার্থ চ্যাটার্জী বলেন, পশ্চিমবঙ্গে কোন নেতা খুঁজে পাওয়া য়ায না। দিল্লী থেকে প্লেনে করে এসে দু-একটা বক্তৃতা দেয়। আবার চলে যায়। যাযাবরা মাঝে মধ্যে এসে এখানে ওখানে মিটিং করবে। রাতের অন্ধকারে একে ওকে ভুল বোঝাবে, সবার সর্তক দৃষ্টি রাখতে হবে।

মানুষের জীবনের উন্নতির জন্য বিজেপি এখানে আসেনি। কি করে ভাগ করানো যায়, মুন্ডার সঙ্গে মাহাতদের, হিন্দুর সঙ্গে মুসলিমদের ঝগড়া লাগানো যায়। ফোর্সের মত টাকা খরচ করছে বিজেপি। টাকা দিয়ে মানুষকে বোকা বানানো যায় না। সবাইকে বলছি ওদের টাকা নিয়ে ওদের বিরুদ্ধে ভোট দিন। মানুষ গরীব হতে পারে, আত্মসম্মান রয়েছে। শুধু হানাহানি, দাঙ্গাবাজি, সাম্প্রদায়িক বিভাজনের রাজনীতি করে বিজেপি। দুর্বৃত্তরা উড়ে উড়ে আসছে আবার উড়ে উড়ে চলে যাচ্ছে। এখানে সাম্প্রদায়িক বিষ ঢোকানো যাবে না। বিজেপির ভুঁইফোড় নেতাদের বলছি, বেশি ভয় ও টাকা দেখাতে যেও না। এখান থেকে ঝাড়খন্ডে পালানোর রাস্তা বন্ধ করলে কোথাও পালাতে পারবে না। আদিবাসীদের ভাই বোনেদের বোকা বানাতে না পারে সেজন্য সর্তক থাকার কথা বলেন তিনি।

মমতা বান্দ্যোপাধ্যায়ের জঙ্গলমহেলর জন্য যা করেছেন, এক কথায় অনস্বীকার্য। কৃষকদের আয় দ্বিগুন হবে। আর
দলের নেতা-কর্মীদের কাছে আবেদন জানিয়ে তিনি বলেন, সরকারি যা প্রকল্প সাধারণ মানুষ যা পাবে, তা যেন সরাসরি তাঁদের হাতে পৌঁছায়। সরাসরি যেন পায়। তাঁদের মনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সর্ম্পকে ক্ষোভ নেই। কয়েকটা লোকের মনে এখনও দুঃখ রয়েছে, যে আমরা এখনও ঠিকমত পেলাম না। যাতে ঠিক মতো পায় পঞ্চায়েত, জেলা পরিষদ ও প্রশাসন দেখবে। পার্থবাবু বলেন, গনতান্ত্রিক ভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করুন, কোন আপত্তি নেই, কিন্তু অর্থ ছড়িয়ে ধর্ম, মিথ্যচার ও গুন্ডাগিরি কোন লাভ হবে না।তিনি আরো বলেনমুখ্যমন্ত্রী বলেছেন এক্সপেয়ারি ডেট এসে গেছে, আর দিশাহীন, ভোটমুখী বাজেট বলেন পার্থবাবু। তিনি বলেন, আমাদের এখানে কৃষকদের আয় তিনগুন হয়েছে। আমরা কৃষকদের জন্য যা ভোটের দিকে তাকিয়ে করিনি।

এরা এক্সটেনশনে ও ভেন্টিলেশনে রয়েছে। এই যায় যায় অবস্থা। ভেন্টিলেশন খুলে দিলে অক্কা হয়ে যাবে। মমতা মানুষের জন্য আজ যা করছে পরে মোদি সরকার তা আগামীকাল নকল করছে। পার্থবাবু সাফ জানিয়ে দেন, এরাজ্যে এনআরসি হবে না।প্রস্তাব আছে, বাস্তবতা নেই। দেশকে অগ্রগতি করতে হলে একে প্রতিহত করতে হবে। সিপিএম ও কংগ্রেসকে পদ্মের পাঁপড়ি বলে কটাক্ষ করেন ওরা এক থাকুক। ওরা সাইনবোর্ডে পরিনত হয়েছে তাঁরা নতুন করে অক্সিজেন পাচ্ছে। কংগ্রেসের এ রাজ্যের নীতি নেই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধীতা কা যাদের কাজ তাঁরা বিজেপির হাত শক্ত করছে। পিছিয়ে পড়া মানুষের আছে আবেদন, অভাব-অভিযোগ থাকলে নিশ্চয়ই সেটা বলবেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সবার উপরে রয়েছেন, তিনি দেখবেন। বাংলার ঐক্যবদ্ধ থাকলে হানাদারের দল এখানে এসে ঘাঁটি গাড়তে পারবে না।

এছাড়াও চেক করুন

দ্বিতীয় দফার ভোটে বাম প্রার্থী মহম্মদ সেলিমের গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে

স্টিং নিউজ সার্ভিস: রায়গঞ্জ লোকসভা কেন্দ্রের ইসলামপুরের পাটাগড়ায় সিপিএম প্রার্থী মহম্মদ সেলিমের গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.