Breaking News
Home >> Breaking News >> পশ্চিমবঙ্গে গনতন্ত্র বলে কিছু নেই,সরকার আর পার্টি এক হয়ে গেছেঃ দিলিপ ঘোষ

পশ্চিমবঙ্গে গনতন্ত্র বলে কিছু নেই,সরকার আর পার্টি এক হয়ে গেছেঃ দিলিপ ঘোষ

বিশ্বজিৎ সরকার, স্টিংনিউজ করেসপনডেন্ট, দার্জিলিংঃ অমিত শাহের পর উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে বহনকারী হেলিকপ্টার অবতরণের অনুমতি দেয়নি প্রশাসন যার কারনে লখনউ থেকেই ফোনে জনগণের উদ্দেশ্যে ভাষণ দিলেন উওর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনা। এই বিষয়ে বাগডোগরা বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন যে বিশ্বের সবচেয়ে গনতান্ত্রিক দেশ ভারত আর তার সবচেয়ে বড় রাজ্য হল পশ্চিমবঙ্গ। আর যে রাজ্যে বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গা আসতে পারে অনুপ্রবেশকারি আসতে পারে। এবং উগ্র প্রন্থিরা আসতে। কিন্তু এই রাজ্যে দেখের প্রধানমন্ত্রী নামতে পারেন না।

সবচেয়ে বড় দল বিজেপি তার সভাপতি নামতে পারেন না। দেশের জনপ্রিয় মুখ্যমন্ত্রী উত্তর প্রদেশের যোগীকে নামতে দেওয়া হয়না। কোন রাষ্ট্রবাদি বিচারের সাথে যুক্ত গনতন্ত্র রক্ষা করছেন তারা থাকতে পারেন না। আর তাই এদিন যোগীজির হেলিকপ্টার নামতে দেওয়া হল না। এবং অমিত সাহর কাঁথিতে সভার একঘন্টা আগে হেলিকপ্টার নামার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এখানে মটেও পাওয়া গেল না। আর এই হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের বর্তমান অবস্থা গনতন্ত্র বলে কিছু নেই। এবং সরকার বলে কিছু নেই। একটা পার্টি আর সরকার এক হয়ে গেছে তাই রাজনৈতিক দৃষ্টি ভঙ্গি নিয়ে প্রশাসন চলছে এখানে। তাই আমরা এটার ঘোর নিন্দা করছি। এদিনের যোগীজি সভা আসতে পারলেন না কেবল মাএ প্রশাসনিক অসহযোগিতা কারনে তাই তিনি লখনউ থেকে মোবাইলএ ভাষন দিয়ে কার্যকরাদেথ সম্রধন করলেন। দূরভাগ্য বিষয় প্রতিটি সভায় যত রকমের সমস্যা করা যায় সেটার চেষ্টা চলছে।

যোগীজির রাজগঞ্জে হেলিপ্যাডে নামার কথা ছিল বিএসএফ অনুমতি দিয়েছেন। কিন্তু ডিএম তার অনুমতি দেননি। এবং বালুরঘাটে সরকারি হেলিপ্যাড আছে এয়ারপোর্ট আছে কিন্তু সেখানকার জেলাশাসক অনুমতি দেননি। তার জন্য আমরা জেলাশাসকের অফিস ঘেরাও করতে হয়েছে বাধ্য হয়ে। এবং রাজগঞ্জে যে সভাস্থান সেখানে শনিবার রাতে যেখানে জল দিয়ে ঢেকে দেওয়া চেষ্টা করা হয়েছিল। সেটাকে আটকাতে হয়েছে। জলপাইগুড়ি প্রধানমন্ত্রীর সভা হবে সেই জায়গার অনুমতি নিয়ে টালবাহানা চলছিল। এবং এদিন আমরা সেইটা হাতে পেয়েছি।

এর পাশাপাশি তিনি আরও বলেন যে প্রধানমন্ত্রীর সভায় জাবার জন্য যে বাস বুকিং করা হয়েছিল সেই বাসের মালিকদের ভয় দেখানো হচ্ছে। এরপর তারা বলছেন যে তারা বাস দিতে পরবো না। এর আগে দেখেছেন যে কাঁথিতে সভার পরে শয়ে শয়ে গাড়ি ভাড়া হয়েছে বহু কর্মীদের মার হয়েছে আমাদের। এবং তারা এখনও হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এর পাশাপাশি গাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে আমাদের গাড়িতে। আর আমরা সেই সভায় উপস্থিত ছিলাম বলে বেশ কয়েকজনের নামে কেস দেওয়া হয়েছে ননবেলাবেলে কি ধরনের গনতন্ত্র।

বিরোধীদের বক্তব্য রাখার সুযোগ দেওয়া হবে না। এখনও পর্যন্ত পাঁচ তারিখ যোগীজির সভা রয়েছে বাঁকুড়া ও পুরুলিয়াতে। এবং ছয় তারিখে শিবরাজ সিং চৌহানের সভা আছে খরকপুড় ও বহরমপুর সভা আছে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত অনুমতি বা হেলিকপ্টার অনুমতি পায়নি। এরকম ভাবে বিজেপিকে গনতান্ত্রিক আন্দোলন চালিয়ে যেতে হচ্ছে। আমাদের কর্মীরা মনের জোর এ লড়াই করছেন। আর এই লড়াই এ মানুষ যে আমাদের সঙ্গে আছেন তা বিভিন্ন সভার যে জনসভাগম হয়েছে মানুষ তা বুঝিয়ে দিয়েছেন। এতে ভয় পেয়ে গিয়ে মমতা ব্যানার্জি তার তৃণমূল ও সরকার বিরোধী করার চেষ্টা করছে।

এছাড়াও চেক করুন

দ্বিতীয় দফার ভোটে বাম প্রার্থী মহম্মদ সেলিমের গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে

স্টিং নিউজ সার্ভিস: রায়গঞ্জ লোকসভা কেন্দ্রের ইসলামপুরের পাটাগড়ায় সিপিএম প্রার্থী মহম্মদ সেলিমের গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.