Breaking News
Home >> Breaking News >> গুজবের ‘গুজবে’ ক্লান্ত গ্রামীণ হাওড়ার আম জনতা, শান্তি ফেরাতে কঠোর হচ্ছে প্রশাসন

গুজবের ‘গুজবে’ ক্লান্ত গ্রামীণ হাওড়ার আম জনতা, শান্তি ফেরাতে কঠোর হচ্ছে প্রশাসন

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, হাওড়া: গুজবে কান দেবেন না। কোনও কিছু জানতে পারলে তৎক্ষণাৎ পুলিশ কে জানান। প্রচারের পাশাপাশি দেওয়া হচ্ছে লিফলেট। তারপরেও প্রায় নিয়ম করে সামনে আসছে একের পর এক ঘটনা। আক্রান্ত হচ্ছে যতো তার থেকে বেশি ছড়াচ্ছে গুজব। আর এই গুজবের হাত ধরে তটস্থ এলাকাবাসী।

গ্রামীণ হাওড়া ঝিখিরা চিংড়াজোল গ্রাম। নিশুতি রাতের অন্ধকার ছেয়েছে গোটা এলাকায়। হন্তদন্ত হয়ে কয়েকজন গ্রামবাসী কাকে যেন খুঁজছে। কিছুটা এগোতেই কয়েক’শ বিঘা জমিতে ঘেরা বেশ কয়েকটি পাড়া। হাতে লাইট নিয়ে বিভিন্ন বয়সী শ দুয়েক ছেলেদের ভিড়। প্রকান্ড মাঠে শুধুই টর্চের আলো। তখনি একটি আওয়াজ আসলো “ওই ছুটছে” কিছু বোঝার আগেই সকলে লাঠি নিয়ে ছুটে চলেছে ওই আওয়াজের উদ্দেশ্যে। এ ভাবেই কয়েক ঘন্টার খোঁজ চলার পরেও কিছু না মেলায় এবার শুরু নতুন নাটক। বাইক, সাইকেলে যারা যাতায়াত করছে তাদের ঠিকুজি কুষ্ঠি নেওয়া।

কেউ কেউ ছেলে-মেয়েদের একা স্কুলে পাঠাতে ভয় পাচ্ছে। রাতে ঘরের সর্বত্র দেখে নেওয়া হচ্ছে কেউ ঢুকে নেই তো। আত্মীয় ও পরিচিত দের কাছ থেকে ফোন আসছে। মোবাইলে হোয়াটস অ্যাপে বিভিন্ন ছবি আসছে যা ভয় ধরাচ্ছে। এলাকায় বাইরের লোক দেখলে যেমন সন্দেহ বাড়ছে। তেমনি কাজ শেষে অন্য পাড়া দিয়ে ফিরতেও ভয় হচ্ছে। এ যেন উভয় সঙ্কটে। কথা হচ্ছিল ঝিখিরা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকের সঙ্গে। তাঁর অভিযোগ, কিছু মানুষ ভয়ের বাতাবরণ সৃষ্টির চেষ্টা করছে। এমন সুচারু ভাবে করা হচ্ছে যা প্রশাসনের আশ্বাস কেও দমাতে পারছে না! সাধারণ মানুষের উচিত এই সময় প্রশাসনের সাহায্য নেওয়া। কোন কিছু শুনে হৈ হৈ করে এলাকা ঘিরে ফেলা, ওই সমস্ত খবর ফোনে অন্য এলাকাতেও না ছড়িয়ে দেওয়া।

গ্রামীণ পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মারধরের খবর আসলে এলাকায় পৌঁছে যাওয়া হচ্ছে। আক্রান্তদের উদ্ধারের চেষ্টা করবার পাশাপাশি হামলা করা ব্যক্তিদের চিহ্নিত করা হচ্ছে। হোয়াটস অ্যাপে যাতে বিভিন্ন ছবি ছড়িয়ে না পরে তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। প্রশাসন প্রচার চালাচ্ছে। আটক করা হচ্ছে। এসব বরদাস্ত হবে না। কঠোর ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দক্ষিণ ২৪ পরগনা থেকে সৃষ্ট গুজবের ঢেউ গ্রামীণ হাওড়ার একের পর এক গ্রাম জুড়ে ছড়িয়েছে। আমতা, বাগনান, শ্যামপুর প্রতিটা থানার অধীন চলছে প্রচার। এছাড়া কিছু সংগঠনের পক্ষ থেকেও প্রচার চালানো হচ্ছে। কিন্তু প্রায় দিন বেড়ে চলেছে ঘটনার ঘনঘটা। অন্য রাজ্যের ছবি হোয়াটস অ্যাপে ছড়িয়ে আতঙ্ক বাড়িয়ে চলেছে। ভিখারিদের দেখলেও সন্দেহের চোখে রাখা হচ্ছে। বাধ্য হচ্ছে অপরিচিত এলাকায় ভিক্ষা না করতে যেতে। বহু মানুষ ভোটার কার্ড নিয়ে বের হচ্ছে। কোনভাবে আক্রমণ তার উপর না নেমে আসে!

নিত্যযাত্রী দের কথায়, বাগনান, কুলগাছিয়া সহ ব্যস্ত স্টেশনে রাতের ট্রেনে ভিড় কমছে! সাইকেল জমা রাখা হলেও রাত ন’টা বাজার সাথে নিত্যযাত্রীরা চলে আসছে। অথচ শেষ লোকালেও বহু মানুষ ফিরতেন। সাইকেল চালিয়ে নুন্টিয়া, হিজলক, খাজুরটি, বাকসি, তুলসিবেড়িয়া সহ বিভিন্ন এলাকায় ফিরে যেতেন। কিন্তু গুজবের জেরে বাড়ি ফেরাটাই এখন তাড়াহুড়ো পর্যায়ে। বাড়ি থেকে ফোন আসছে কিরে নেমেছিস ট্রেন থেকে! শাসক দলের নেতাদের মুখে এ নিয়ে পড়শি রাজ্যের দিকে আঙুল। তাদের কথায়, ভিন রাজ্য থেকে আসা হিন্দিভাষী রা এই ষড়যন্ত্রে জড়িত। প্রশাসন কড়া হয়েছে। ধীরে হলেও কমবে এই গুজবের প্রবণতা।

প্রশাসন দায়িত্ব নিয়েছে। চালানো হচ্ছে লাগাতার প্রচার। তবুও মানুষের মাঝে আতংকের ছাপ রয়ে গিয়েছে। সকলের মুখে একটাই কথা গুজবের গুজব ছড়ানো বন্ধ হোক। ফিরে আসুক শান্তি।

এছাড়াও চেক করুন

জঙ্গল মহলে ফের তৃণমূলে ভাঙন ধরালেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ

স্টিং নিউজ সার্ভিস, ঝাড়গ্রাম:- বেলপাহাড়ির পর নয়াগ্রামে বিজেপিতে যোগ দিলেন কয়েকশো তৃণমূল ও সিপিএম কর্মী …

Leave a Reply

Your email address will not be published.