Breaking News
Home >> Breaking News >> নিশীথের দেহরক্ষীর সাথে আইসির ধ্বস্তাধস্তি, ধরনা তুলে নিল বিজেপি

নিশীথের দেহরক্ষীর সাথে আইসির ধ্বস্তাধস্তি, ধরনা তুলে নিল বিজেপি

কোচবিহার, ১১ এপ্রিলঃ ভোট শেষ হতেই ছাপ্পা ও রিগিংয়ের অভিযোগ তুলে ধর্নায় বসল বিজেপি। আজ সন্ধ্যায় কোচবিহার গুঞ্জবাড়ি এলাকায় পলেটেকনিক কলেজে ডিসি/আরসির সামনে ধর্নায় বসেন দলীয় প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক সহ বিজেপি নেতা কর্মীরা। সেই সময় কোচবিহার কোতায়ালি থানার আইসি সৌম্যজিৎ রায়ের সঙ্গে নিশিথের দেহ রক্ষীর বসচা বাঁধে। সেই সময় নিশিথের দেহরক্ষী আই সি কলাট ধরে ধাক্কা দিতে থাকে। পরে সেখানে কিন্তু একটা নিশিথের দেহরক্ষী ও আইসির মধ্যে ধুন্ধুমার শুরু হয়। তাঁর পরে রাত ৮ টা ২০ নাগাদ বিজেপি তাঁদের সেই ধরনা তুলে নেন। একজন কর্মরত পুলিশ অফিসারের গায়ে হাত দেওয়াটা কতটা যুক্তি সম্মত তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন রাজনৈতিক মহলে।
যদিও ধরনা পর নিশীথ প্রামাণিক বলেন, “বিজেপি-র তরফে রিটার্নিং অফিসারের কাছে অভিযোগ জানানো হয়েছিল, সন্ত্রাস কবলিত এলাকাগুলি চিহ্নিত করে সেখানে রাজ্য পুলিশের বদলে কেন্দ্রীয় বাহিনী দেওয়া হোক। কিন্তু সেই সকল জায়গায় কেন্দ্রীয় বাহিনী দেওয়া হয়নি। আমরা বলেছিলাম শীতলকুচি, ছোটশালবাড়ি এলাকা মারাত্মক সন্ত্রাস কবলিত। কোচবিহারের প্রাক্তন এসপি অভিষেক গুপ্ত যে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করার কথা বলেছিলেন পরবর্তীকালেও সেই পরিমাণ বাহিনীই বহাল রাখা হয়।
তিনি আরও বলেন, “একদিকে তৃণমূলের গুন্ডাবাহিনী অপরদিকে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ যৌথভাবে সন্ত্রাস চালিয়েছে। ৩০০-র বেশি বুথে সাধারণ ভোটাররা তাঁদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেননি। কিন্তু ১৬৬টি বুথে হুমকি দিয়ে ভোট দিতে বাধা দেওয়া হয়েছে। আমরা চাই মানুষ নিজের ভোট নিজে দিক। এর তীব্র প্রতিবাদ করছি। রিটার্নিং অফিসারের কাছে এবিষয়ে অভিযোগ জানিয়েছি এবং এই সকল বুথে পুনর্নির্বাচনের দাবি জানাচ্ছি।”বেশ কিছুক্ষণ অবস্থান চলার পর কেন্দ্রীয় বাহিনী ও পুলিশ ধরনা তোলার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। সেই সময় শুরু হয় ধস্তাধস্তি।

এছাড়াও চেক করুন

কোচবিহারের তুফানগঞ্জে সাংবাদিক নিগ্রহের প্রতিবাদ, থানায় ডেপুটেশন সাংবাদিকদের

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ ফের সাংবাদিক নিগ্রহ কোচবিহারের তুফানগঞ্জে। নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর এ পর্যন্ত চারবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.