Breaking News
Home >> Breaking News >> বছরের প্রথম দিনে রক্তদান করে পথ চলা শুরু করলেন এরা

বছরের প্রথম দিনে রক্তদান করে পথ চলা শুরু করলেন এরা

শিব শঙ্কর চ্যাটার্জ্জী, দক্ষিণ দিনাজপুর: ভোটের উত্তাপ বেশ গরম। রাজনৈতিক নেতা কর্মীরা যখন নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত , তখন ব্লাড ব্যাঙ্কে রক্ত না পেয়ে সমস্যায় পরছেন রোগীর পরিজনেরা। একাধিক ক্ষেত্রেই ডোনার কার্ড থাকা সত্ত্বেও মিলছে না প্রয়োজনীয় রক্ত। সোমবার একপ্রকার রক্ত শূন্য হয়ে পরে দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুর মহকুমা হাসপাতালের ব্লাড ব্যাঙ্ক।

ভোটের বাদ্যি বাজতেই রক্ত নিয়ে সমস্যা শুরু হয় দক্ষিণ দিনাজপুর দুটো ব্লাড ব্যাঙ্কেই। বালুরঘাট ব্লাড ব্যাঙ্ক মোটামুটি ভাবে সচল থাকলেও, রক্তশূণ্য হয়ে পরে গঙ্গারামপুর মহকুমা হাসপাতালের ব্লাড ব্যাঙ্ক। ঐ ব্লাড ব্যাঙ্কের ডিজিটাল বোর্ড অনুযায়ী, মোট দশ ইউনিট রক্ত ছিল সোমবার। বি পজেটিভ সহ অন্যান্য নেগেটিভ গ্রুপ গুলি শূন্যে পরিণত হয়। ফলে অথৈ জলে পরেন রোগীর পরিবারের লোকজনেরা। রক্ত না পেয়ে গত কয়েকদিন থেকেই ক্ষোভের সৃষ্টি হয় রোগীদের মধ্যে। রক্তের ভান্ডার পূর্ণ রাখতে জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক বিভিন্ন ক্লাব ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলির কাছে আবেদনও জানান গত কয়েকদিন আগে। ঠিক সেই ডাকে সারা দিয়ে নববর্ষের পুণ্য লগ্নে গঙ্গারামপুর মহকুমা হাসপাতালে ব্লাড ব্যাঙ্কেই উন্মীলন নামে একটি সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগেই একটি রক্তদান উৎসবের আয়োজন করা হয় এদিন। সর্বমোট ১৭ জন রক্তদাতা রক্তদান করেন এদিন। নতুন বছরকে রক্তদানের মধ্যে দিয়ে স্বাগত জানাতে পেরে খুশি সন্তোষ বর্মণ, আরিফ সরকার, সুশীল মুর্মু, পার্থ বর্মণদের মতো বীর রক্তদাতারা। এদিনের এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন হাসপাতালে সুপার সহ বিশিষ্ট শিক্ষক তুষার কান্তি দত্ত, গবেষক ও সমাজকর্মী কৌশিকবিশ্বাস, অধ্যাপক অভিজিৎ সরকার, প্রিয়জিৎ বর্মণ, চিকিৎসক টি.কে সাহা প্রমুখরা।

এবিষয়ে আয়োজক সংস্থার পক্ষে দেবাশীষ সরকার বলেন, অন্যান্য জেলার মতো রক্তের চরম সংকট শুরু হয়েছে দক্ষিণ দিনাজপুরেও। আর তাই গঙ্গারামপুর মহকুমা হাসপাতালের ব্লাড ব্যাঙ্কের পরিষেবা সচল রাখতে তড়িঘড়ি করে নববর্ষের দিনেই আমারা রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেছি। সমস্ত রক্তদাতাদের তিনি অভিনন্দন জানিয়েছেন।
প্রসঙ্গত, গঙ্গারামপুর মহকুমা হাসপাতালে ব্লাড ব্যাঙ্কে প্রতিদিন গড়ে ২০ ইউনিট করে রক্তের প্রয়োজন হয়। এছাড়াও বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে প্রতিদিন গড়ে ৪০ ইউনিট করে রক্তের প্রয়োজন হয়। যার মধ্যে ১০ শতাংশই থ্যালাসেমিয়া রোগীদের রক্ত সঞ্চালনে প্রয়োজন হয়। ভোটের কারণে জেলার বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব সহ রাজনৈতিক মদত ভুক্ত ক্লাব- সংগঠনগুলির রক্তদান শিবির আয়োজন করতে না পারায় এই সংকট শুরু হয়েছে বলে জানান গিয়েছে ব্লাড ব্যাঙ্কগুলির তরফ থেকে। এই সংকট মোচনে সমস্ত সহৃদয় মানুষ এবং সংগঠনগুলিকে রক্তদানের আবেদন জানিয়েছেন জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক সুকুমার দে। এছাড়াও নববর্ষের দিনে এমন একটি অভিনব উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন তিনি।

এছাড়াও চেক করুন

‘এনআরএসে যাঁরা চিকিৎসকদের মেরেছে তাঁরা জামাতের লোক’ : দিলীপ ঘোষ

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঝাড়গ্রাম : রবিবার ঝাড়গ্রাম শহরের স্টেশনপাড়ায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.