Breaking News
Home >> Breaking News >> উচ্চ মাধ্যমিকে ভালো রেজাল্ট করে তাক লাগিয়ে দিল বালুরঘাটের সুস্মিতা

উচ্চ মাধ্যমিকে ভালো রেজাল্ট করে তাক লাগিয়ে দিল বালুরঘাটের সুস্মিতা

শিবশংকর চ্যাটার্জ্জী, দক্ষিন দিনাজপুর: দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বালুরঘাট ব্লকের কামারপাড়া এলাকার বাসিন্দা প্রতিমা মহন্তের স্বামী কানাই মহন্তের ছোট্ট একটি পানের দোকানের ওপর সংসার। কিন্তু বছর খানেক আগে কানাই বাবু মারা যাওয়ার পর তার উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী মেয়েকে নিয়ে প্রতিমা দেবী চরম দুর্দশার মধ্যে পড়েন।

সেই সময় তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসে তারই উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী মেয়ে সুস্মিতা মহন্ত। পড়াশোনায় তুখোড় এই পরীক্ষার্থী তার পড়া শোনা চালানোর পাশাপাশি তার মায়ের সাথে পানের দোকানও করতে শুরু করে। সে দিনে প্রায় ৩-৪ ঘন্টা পানের দোকান করে বলে সুস্মিতা জানায়। এই সুস্মিতাই পানের দোকান করার পাশাপাশি উচ্চ মাধ্যমিকে ভালো রেজাল্ট করে সকলকে তাক লাগিয়ে দেয় । তার প্রাপ্ত নম্বর ৪৬৮ শতাংশের হিসেবে যা দাঁড়ায় ৯৩. ৬%।

কলা বিভাগের ছাত্রী সুস্মিতার সকল বিষয়ে গৃহ শিক্ষক থাকলেও তাদের আর্থিক দিকটি মাথায় রেখে কোন গৃহশিক্ষকই তার কাছে পয়সা নিতো না বলে সুস্মিতা জানিয়েছে। সুস্মিতা বড় হয়ে নার্স হতে চায়। এবং সুস্মিতার মা প্রতিমা দেবী চান মেয়ে শিক্ষিকা হোক। কিন্তু হত দরিদ্র এই মেয়েটিকে অকাল পিতৃবিয়োগ অনিশ্চিত ভবিষ্যতের সামনে দার করিয়ে দিয়েছে।

সুস্মিতা নার্স হয়ে তার মায়ের পাশে দাঁড়াতে চায়। কিন্তু আর্থিক প্রতিবন্ধকতা তার সবচেয়ে বড় সমস্যা। এমত অবস্থায় সুস্মিতা ও তার মা চান যদি সরকার বা কোন সহৃদয় ব্যাক্ত যদি তাদের পাসে এসে দাঁড়াতো তাহলে সুস্মিতা পেতে পারে এক সোনালী ভবিষ্যত।

সুস্মিতার মা প্রতিমা জানান তিনি ব্যাক্তিগত তার মেয়ে কে শিক্ষিকা হওয়াতে চান কিন্তু তার মেয়ে নার্স হতে চায় তাই তিনি তার মেয়ের ইচ্ছেকে মর্যদা জানিয়ে মেয়ের পাশে থাকতে চান। কিন্তু তার আর্থিক অবস্থার কথা ভেবে প্রতিমা দেবীও চিন্তিত তার মেয়ের ভবিষ্যত নিয়ে। তাই তিনিও সকলের সাহায্য প্রার্থনা করেন।

এছাড়াও চেক করুন

শিলিগুড়ির বিধাননগরে মারতি ভ্যান ও ট্রাকের সংঘর্ষ,আহত তিন

বিশ্বজিৎ সরকার,স্টিংনিউজ করেসপনডেন্ট,দার্জিলিংঃ মঙ্গলবার শিলিগুড়ির মহকুমা পরিষদের অন্তরর্গত ফাঁসিদেওয়া ব্লকের বিধাননগরের মাদাতি এবাকায় মারতি ভ্যান …

Leave a Reply

Your email address will not be published.