Breaking News
Home >> Breaking News >> জেলা সভাপতি পদ থেকে অপসারিত রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, নতুন দায়িত্বে বিনয়কৃষ্ণ-পার্থপ্রতীম

জেলা সভাপতি পদ থেকে অপসারিত রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, নতুন দায়িত্বে বিনয়কৃষ্ণ-পার্থপ্রতীম

মনিরুল হক, কোচবিহার: দলীয় প্রার্থীকে জেতাতে না পরার জন্য কোপ পড়তে পারে তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভাপতি তথা উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের উপরে। শুক্রবার তাঁকে জেলা সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে দিল তৃণমূল৷ রবীন্দ্রনাথ ঘোষের বদলে কোচবিহার জেলা তৃণমূল সভাপতি করা হল বিনয়কৃষ্ণ বর্মনকে৷ কার্যকরী সভাপতি পার্থপ্রতীম রায়৷
লোকসভা ভোটের প্রচারে এবার উত্তরবঙ্গে টানা প্রচার করেন তৃণমূল সুপ্রিমো৷ কিন্তু ২৩ মে ভোটের ফল গণনা হতেই স্পষ্ট হয়ে যায় বাংলার উত্তরের সব জেলাতেই ভারডুবি হয়েছে রাজ্যের শাসক দলের৷ কোচবিহার লোকসভা জোড়াফুলের থেকে ছিনিয়ে নেয় পদ্ম শিবির৷

সূত্রের খবর, উত্তরবঙ্গ উন্নয় মন্ত্রীকে নিয়ে কোচবিহারে দলের সংগঠনেও অসন্তোষ ছিল৷ পঞ্চায়েত ভোটের পর থেকেই তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকট হয় জেলায়৷ প্রায় নিয়ম করে প্রতেকদিন সামনে আসত তৃণমূলের মূল সংগঠনের সঙ্গে যুব সংগঠনের বিবাদ৷ শোনা যেত জেলা নেতৃত্বের বিভিন্ন গোষ্টীর ঝামেলার কথাও৷ তৃণমূল সভাপতি হিসাবে যা বন্ধ করতে ব্যর্থ হন রবীন্দ্রনাথবাবু৷
আজ বিকেল ৫ টা নাগাদ কোলকাতা থেকে সাংবাদিক বৈঠক করে তৃণমূল নেতৃত্ব ওই ঘোষণা করতে পারে বলে এখনও পর্যন্ত খবর রয়েছে। অন্যদিকে ওই ঘোষণার ১ ঘণ্টা আগে কোচবিহারে নিজের বাড়ির কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠকের ডাক দিয়েছেন রবীন্দ্রনাথ বাবু। প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার ব্যাপার নিয়েই তিনি তাঁর বক্তব্য তুলে ধরতে পারেন।
প্রসঙ্গত, তৃণমূল কংগ্রেসের সৃষ্টি লগ্ন থেকে কোচবিহারে দলের জেলা সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন রবীন্দ্রনাথ বাবু। প্রথম থেকেই তাঁর সাথে মিহির গোস্বামীর গোষ্ঠী লড়াইও দীরঘদিন থেকেই। ২০১১ সালে তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর সেই গোষ্ঠী লড়াই আরও তীব্র হয়।
২০১৬ সালে লোকসভা উপনির্বাচনে নিজে হাতে রাজনীতিতে তুলে আনা যুব নেতা পার্থ প্রতিম রায়কে কোচবিহার কেন্দ্র থেকে জিতিয়ে এনে সাংসদ করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ বাবু।

সেই পার্থ প্রতিম রায়ের সাথেই পরবর্তীতে গোষ্ঠী লড়াই তীব্র আকার ধারন করে। রাজনৈতিক মহলের ধারণা, সেই গোষ্ঠী লড়াইয়ের জন্য এবার কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রে প্রার্থী হতে পারেন নি পার্থ প্রতিম। তাঁর জায়গায় প্রার্থী করা হয়েছিল সদ্য ফরওয়ার্ড ব্লক ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়া পরেশ অধিকারীকে।

কিন্তু লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামানিকের কাছে পরাজিত হন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী। আর সেই কারনেই কোচবিহার তৃণমূলে এই রদবদলের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে এনিয়ে এখনও পর্যন্ত কারো কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায় নি।

এছাড়াও চেক করুন

শিলিগুড়ির বিধাননগরে মারতি ভ্যান ও ট্রাকের সংঘর্ষ,আহত তিন

বিশ্বজিৎ সরকার,স্টিংনিউজ করেসপনডেন্ট,দার্জিলিংঃ মঙ্গলবার শিলিগুড়ির মহকুমা পরিষদের অন্তরর্গত ফাঁসিদেওয়া ব্লকের বিধাননগরের মাদাতি এবাকায় মারতি ভ্যান …

Leave a Reply

Your email address will not be published.