Breaking News
Home >> Breaking News >> দাড়িভিট কান্ড নিয়ে রাজেশের বোনের মুখে রাজনৈতিক সিবিআই তত্ত্ব! ১৯-এর আগে মুখ্যমন্ত্রীকে রাজ্যে আটকে রাখতে চায় বিজেপি

দাড়িভিট কান্ড নিয়ে রাজেশের বোনের মুখে রাজনৈতিক সিবিআই তত্ত্ব! ১৯-এর আগে মুখ্যমন্ত্রীকে রাজ্যে আটকে রাখতে চায় বিজেপি

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ সার্ভিসঃ ১৯-এর আগে সিবিআই কে দিয়েই ঘাসফুল বধের প্রচেষ্টায় বিজেপি! সারদা-নারদা তদন্ত চলাচ্ছে সিবিআই৷ এবার দাড়িভিট স্কুলে প্রাক্তন দুই ছাত্রের মৃত্যুর তদন্তে সেই সিবিআই-এর পক্ষে বিজেপির ছাত্র সংগঠন এবিভিপি। এক্ষেত্রে তারা পাশে পেয়েছে মৃত রাজেশের বোন মৌ সরকারকে।

দেশের সর্বোচ্চ তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই কে নিয়ে পক্ষপাতিত্ব অভিযোগ বারেবারে উঠেছে। সরিয়ে দেওয়া হয়েছে প্রধান দুই কর্তাকে। বিরোধীদের যুক্তি প্রধানমন্ত্রী দপ্তরের চাপে ভোটের আগে তদন্তে গতি বাড়ে। বিরোধীদের কন্ঠ রোধ করতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে সিবিআইকে। এবার সেই সিবিআইকে দিয়ে দাড়িভিট কান্ডের তদন্তের জন্য জোড়ালো আবেদন জানালো এবিভিপি।

শুক্রবারের দুপুর রানী রাসমণি অ্যাভিনিউতে দাড়িভিট কান্ড নিয়ে এবিভিপি সমর্থকদের ছিল সমাবেশ। ছিলেন মৃত রাজেশের বোন মৌ সরকার।বেশ ঝাঝালো গলায় সিবিআই নিয়ে সওয়াল করলেন। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর নাম না করে বক্তব্যে তাঁকে উদ্দেশ্য করে প্রশ্ন ছুঁড়লেন। ভাইয়ের মৃত্যু দিদির হৃদয়ে ঝড় তোলে। তবে এ ঝড় রাজনৈতিক মতাদর্শ থেকে ঠিকরে বেরিয়ে আসবার মতো শোনালো। প্রতিটি কথায় ছিল রাজনৈতিক দৃষ্টি।

বাংলার মাটিতে ছাত্রছাত্রীদের জন্য একাধিক প্রকল্প চালু করেছে মা-মাটি-মানুষের সরকার। কন্যাশ্রী-যুবশ্রী সহ বহু প্রকল্প। সর্বশেষ তালিকায় রূপশ্রী। দাড়িভিট স্কুলে দুই প্রাক্তন ছাত্রের গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু নিয়ে তদন্ত চালাচ্ছে সিআইডি। দোষী সাব্যস্ত হলে কেউ ছাড় পাবে না বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এরপরেও সিবিআই তদন্ত চেয়ে শহরের রাজপথে সমাবেশ কিসের ইঙ্গিত। কোন নিদিষ্ট একটি রাজনৈতিক দলের পালে হাওয়া বইয়ে দেওয়া নয় তো!

বছর ঘুরলেই ১৯-এর লোকসভা নির্বাচন। তার আগে বিরোধী শিবির কে নিয়ে মমতার ব্রিগেড সমাবেশ। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আন্দোলন করে মুখ্যমন্ত্রী কে রাজ্যের গণ্ডির মধ্যে আবদ্ধ করে রাখার প্রয়াস দিল্লির কেন্দ্রীয় সরকারের। জাতীয় জোট না হলে সেক্ষেত্রে বিজেপি’র লাভ। পরের পাঁচ বছরের জন্য দিল্লির মসনদে এনডিএ শিবির। কিন্তু এ ভাবে কি দমিয়ে রাখা যাবে বিরোধী শিবিরের প্রধানমন্ত্রীর দাবিদার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে। বরাবর কঠিন পিচে রান করে আসা সেদিনকার বিরোধী নেত্রী। তাঁর সামনে সিবিআই তো দূর কোনও প্রতিরোধ স্থায়ী হয়নি।

ছাত্র মৃত্যুতে সিবিআই তদন্তের দাবিতে আদালতে লড়াইকেও খোলা রেখেছে বিজেপি। এ দিকে বিজেপি’র রথযাত্রা মিটলেই প্রধানমন্ত্রীর বাংলা অভিযান। একাধিক জায়গায় মিটিং করবেন। বিভিন্ন দল থেকে নেতাদের আগমন ঘটবে। অধীর চৌধুরীর মতো দাপুটে কংগ্রেস নেতার বিজেপিতে ভিড়বার সম্ভাবনা। তার আগে দাড়িভিট স্কুল কান্ড, চোলাই মদ, ভাগাড়ের মাংস সহ একাধিক ইস্যু কে কাজে লাগাতে নির্দেশ এসেছে স্বয়ং অমিত শাহের কাছ থেকে! কোনও ইস্যু কে নিভতে দিতে চায় না গেরুয়া শিবির। সঙ্গে ঔপনিবেশিক হিসাবে থাকবে সিবিআই। ১৯ এর আগে মুখ্যমন্ত্রী কে কঠিন চাপে বেধে দিতে চাইছে বিজেপি।

এছাড়াও চেক করুন

ব্লক সভাপতির অনুগামীর বাড়িতে বোম ও গুলি ছোড়ার অভিযোগ দিনহাটার বিধায়ক পন্থীদের বিরুদ্ধে

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ ব্লক সভাপতির অনুগামীর বাড়িতে বোম ও গুলি ছোড়ার অভিযোগ উঠল দিনহাটার বিধায়ক …

Leave a Reply

Your email address will not be published.