Breaking News
Home >> Breaking News >> বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের আবক্ষ মূর্তি বসল পানিহাটি বালিকা বিদ্যালয়ে

বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের আবক্ষ মূর্তি বসল পানিহাটি বালিকা বিদ্যালয়ে

সৈকত গাঙ্গুলী, ব্যারাকপুর: উত্তর ২৪ পরগণার পানিহাটি বালিকা বিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠিত হল নারী শিক্ষা ও নারী মুক্তি আন্দোলনের অন্যতম পথিকৃৎ বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের আবক্ষ মূর্তি। উদ্বোধন করেন শিক্ষামন্ত্রী ডঃ পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের ১৩৭ তম জন্মবার্ষিকী এবং ৮৪ তম মৃত্যু বার্ষিক উপলক্ষে রাজ্য সরকারের তরফে বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের আদর্শে নারী শিক্ষার জন্য প্রতিষ্ঠিত পানিহাটি বালিকা বিদ্যালয়ে এক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। এই স্কুল প্রতিষ্ঠানে সমাধিস্থ আছেন বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ডঃ পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ সাংসদ সৌগত রায়, রাজ্য বিধানসভার মুখ্য সচেতক নির্মল ঘোষ,জেলাশাসক অন্তরা আচার্য, মহকুমা শাসক আবুল কালাম আজাদ ইসলাম সহ,পানিহাটি বিদায়ী পৌরপ্রধান স্বপন ঘোষ।
এদিন শিক্ষামন্ত্রী বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের তথ্য নিয়ে তৈরী একটি ওয়েবসাইটেরও উদ্বোধন করেন ।
পার্থ বাবু বক্তব্য রাখতে গিয়ে আজ থেকে শতবর্ষ আগে বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের কথা ছাত্রীদের মনে করিয়ে দেন। তিনি বলেন, আজ অনেক সুযোগ রয়েছে নারী জাতির জন্য। কিন্তু এমন সময় সমাজকে নতুন দিশা দেখিয়েছেন বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন তা আমাদের কাছে শিক্ষণীয় ।
আজ নারীরা শিক্ষায় অনেক বেশী শিক্ষিত। কোন কোন ক্ষেত্রে ছাত্ররাও অনেক পিছিয়ে ।
আমাদের সরকারও নারীদের এগিয়ে আনার পক্ষে। তাই কন্যাশ্রীর মতো প্রকল্প করা হয়েছে যাতে কোন বাঁধা না আসে পড়াশোনার ক্ষেত্রে।

সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে পার্থবাবু জানান, বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন মনে করেছিলেন শিক্ষার আলোয় শিক্ষিত করতে হবে নারী সমাজকে। সমাজের যে সমস্ত কুসংস্কার রয়েছে তার হাত থেকেও মুক্ত করতে হবে নারী সমাজকে। তাঁর অবদান অপরিসীম। আমি যদি তাঁর আদর্শ সম্বন্ধে সচেতন না হই তিনি যে কারণে লড়াই করেছেন সেটা সম্বন্ধে যদি না জানি তাহলে কি করে হবে। তাই সেটাকেই আরও বিস্তার করতে হবে । আমরা তো এখনও বিবেকানন্দকে নিয়ে সেইভাবে পড়ে উঠতেই পারিনি। সব কিছু কিন্তু আমরা বিবেকানন্দ নিয়ে বলি, তাই চমকদারি করে কোনও লাভ নেই। জানতে হবে বুঝতে হবে ভারতবর্ষে সংস্কৃৃতি, আমাদের শান্তি সম্প্রীতি এবং সৌহার্দের বাণী আমাদের মনীষীরা যা দিয়েছেন।
স্কুল কলেজে উপস্থিতির হার কম থাকায় যে সমস্ত সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় সেই সম্বন্ধে বলতে গিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা শিক্ষা কেন্দ্রগুলিকে প্রস্তাব করব যে একশো শতাংশ উপস্থিতি থাকলে তাদেরকে যেন একটা স্বীকৃতি দেওয়া হয়। সেই সম্বন্ধে প্রতিষ্ঠান ভাবনা চিন্তা করতেই পারে। আমি মনে করি স্কুলে আসাটা আমাদের কর্তব্য এবং পড়াশোনা করানোটা আমাদের কর্তব্য। সরকার এগিয়েছে পরিকাঠামোয়, সরকার সিলেবাসও পরিবর্তন করেছে।
বিশ্বহিন্দু পরিষদ নেতা মোহন ভাগবতের পশ্চিমবঙ্গ সফর নিয়ে প্রশ্ন করা হলে পার্থবাবু গুরুত্বহীন ভাবে বলেন, আমি এটা নিয়ে কিছু বলব না। এটা নিয়ে বলা মানে শুধু শুধু সময় নষ্ট করা ভারতবর্ষে অনেকেই এসেছিলেন, কিছুদিন ছিলেন আবার চলে গেছেন।

এছাড়াও চেক করুন

মুখ্যমন্ত্রীর পাঠানো নতুন বছরের শুভেচ্ছা বার্তায় আপ্লুত দিনহাটার খুদে পড়ুয়ারা

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ আচমকা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছ থেকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা বার্তার চিঠি পেয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.