Breaking News
Home >> Breaking News >> রিজার্ভ ব্যাঙ্কে উর্জিত প্যাটেল অধ্যায় শেষ দেশের অর্থনীতির পক্ষে অশনিসংকেত!

রিজার্ভ ব্যাঙ্কে উর্জিত প্যাটেল অধ্যায় শেষ দেশের অর্থনীতির পক্ষে অশনিসংকেত!

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট : রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন উর্জিত প্যাটেল। দেশের জন্য অবশ্যই অশনিসংকেত। রাতারাতি অর্থনৈতিক প্রভাব না পড়লেও আগামী দিনে ফলপ্রসূ হতে পারে এই পদত্যাগ। বিশ্বজুড়ে এমনিতে মন্দার প্রভাব। তার একটা বড় অংশ ভারতেও বিস্তার করেছে। এই সময় আরবিআই এ দরকার ছিল উর্জিত প্যাটেল এর মতো দক্ষ প্রশাসকের। বাস্তবে যা ঘটলো উল্টো। দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নিলেন।

ইউপিএ ২ সরকার থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল বেরিয়ে এসেছিল। সেই সময় সরকার তো পড়ে নি। তবে তার প্রভাব পড়েছিল লোকসভা ভোটে। কংগ্রেস তথা ইউপিএ জোট শরিক দের তলানিতে পাঠিয়ে ক্ষমতায় এসেছিল বিজেপি’র এনডিএ সরকার। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি সরকারের উঁচু দরের মাথা। তাঁদের চার বছরের মস্তিষ্ক প্রসৃত কাজে দেশ পেয়েছে নোটবন্দী এবং জিএসটি মতো অসফল ব্যান্ড! অন্তত বিরোধী দের বক্তব্য ছিল এমনটাই।

ওনাদের কর্মক্ষেত্রের সামনে মাথা তুলে দাঁড়ালে তাকে সরে যেতে হয়। নইলে ছুটিতে যেতে হয়। দেশের প্রধান তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই এর সর্বোচ্চ দুই কর্তার বাগবিতণ্ডা প্রকাশ্য হতেই সরগরম হয়ে ওঠে দেশ। দু’জনকে ছুটিতে পাঠানোর ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর সুদক্ষ মাথা কাজ করেছিল। তবে কি এবার বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছিলেন উর্জিত প্যাটেল? যার হাতে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নরের দায়িত্ব ছিল। দেশের অর্থনীতি যিনি শক্ত করতে বদ্ধ পরিকর ছিলেন।

এমন শক্তির সরে যাওয়া দেশের পক্ষে অনেকটা ক্ষতি। যে দেশে দেশাত্ববোধক গান ‘ধনধান্য পুষ্প ভরা, আমাদের এই বসুন্ধরা’ শুধুমাত্র অর্থের লোভে বিকৃত করতে পারে। সে দেশে একটা রঘুরাম রাজন বা উর্জিত পটেল কে সরিয়ে দেওয়া বেমালুম ব্যাপার। দেশের কথা নয় দলের কথা মাথার উপরে। সূত্রের খবর, ব‍্যাঙ্কের ভাঁড়ারের অর্থ সরকারি কোষাগারে পাঠানো নিয়ে বিবাদের সূত্রপাত। জানা গেছে, অরুণ জেটলি এবং উর্জিত প্যাটেল দু’জনের মধ্যে বাদানুবাদ একসময় চরমে উঠেছিল।

আরবিআই-এর উপর কেন্দ্রের কতৃত্ব কায়েম হোক তার বিরোধিতা সমানে করেছেন উর্জিত প্যাটেল। এতকিছুর পরেও তাঁকে কোনঠাসা করবার প্রয়াস থেকে সরে আসেনি কেন্দ্রের সরকার। যে কারণে নিজে থেকেই সরে আসলেন। আরবিআই এখন গভর্নর হীন। দেশের অর্থনীতিও অভিভাবক শূণ্য।

এছাড়াও চেক করুন

মুখ্যমন্ত্রীর পাঠানো নতুন বছরের শুভেচ্ছা বার্তায় আপ্লুত দিনহাটার খুদে পড়ুয়ারা

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ আচমকা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছ থেকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা বার্তার চিঠি পেয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.