Breaking News
Home >> Breaking News >> বাঁকুড়ার অঙ্গদপুরে নিম্নপারদেও উষ্ণ উদ্যম, ঠাঁসা ভিঁড়ে জমজমাট মেলার পসরা

বাঁকুড়ার অঙ্গদপুরে নিম্নপারদেও উষ্ণ উদ্যম, ঠাঁসা ভিঁড়ে জমজমাট মেলার পসরা

নরোত্তম চেল, অঙ্গদপুর, বাঁকুড়া: বাঙ্গালীর বাঙ্গালী বারোমাসে তেরোপার্বনের বাগধারাকে স্বীকৃতি জানিয়েই বছর শেষে অঘ্রাণ কালীর মেলায় মেতে উঠলো বাঁকুড়া জেলার অঙ্গদপুরবাসী। পুরাণ মতে অঘ্রাণমাসে মাঠে ধান উঠলে এই মা কালীকেই ঘট লক্ষ্মী হিসাবে পুজো করা হয়। সময় মতো রীতি মেনে ক্যানেল পাড়ে আয়োজিত হয় শ্মশান কালীর এই পুজো। প্রাচীন এই পুজো অড়ম্বরতার সাথেই পালিত হয়েচলেছে বিগত বেশ কিছু বছর ধরে। রঙ্গিন অালোর মালায় সেজে উঠেছে মন্দির সাথে রয়েছে প্রশাসনিক তৎপরতাও।
তাই বছর শুরুর পুর্ব লগ্নে কড়া শীতেও এক রাশ উষ্ণতা ছড়িয়ে দিতে ভিন্ন জিনিসের পসরা নিয়ে হাজির হয়েছে দোকানীরা।
খেলনা- পুতুল, চুড়ি মালা থেকে হরেকমাল ৩০ টাকা দেখা মিলবে সবেরি।
সন্ধ্যা ঘনাতেই মানুষের ঢল নামে , দোকানে দোকানে ফাষ্ট ফুডের গন্ধে মম করে গোটা মেলা।
কড়া শীতেও উদ্যমে খামতি মেই এলাকাবসীর। অাবশ্য এই স্বতঃস্ফূর্ত উন্মাদনাই অাশা জিইয়ে রাখে লক্ষ্মী লাভের দাবী দোকানীদের।
কোমিটির তরফ থেকে আয়োজন করা হয়েছে কন্ঠশিল্পী কৃর্তন ও বাউলের। মেলায় মূলত বচ্চাদের জন্য রয়েছে বিভিন্ন রকমের চড়কের।
গ্যাম্বেল প্রেমীদের জন্য অাছে পকেটের জোর অনুযায়ী একাধিক গ্যাম্বেলিং এর ব্যাবস্থাও।
মেলা তদারকীর দ্বায়িত্বে রয়েছেন মেলার অন্যতম উদ্দোক্তা এলাকার কাউন্সিলার স্বরুপ মন্ডল। কার্যত তাঁরি নেতৃত্বে মেলা কমিটির কর্মযজ্ঞ ছিলো নজরে পড়ার মতো।
শুধু অঙ্গদপুর নয় অাসে পাসের বেশ কিছু এলাকার মানুষজনের প্রানকেন্দ্র হয়ে ওঠে বছর শেষের এই মেলা।

নবান্নের প্রাক্কালে সাত দিন ধরে অায়োজিত এই মেলায় শেষের কয়েকটা দিনের অানন্দ চুটিয়ে উপভোগ করতে হিমেল হাওয়ার চোখ রাঙানিকে কে রীতিমত উপেক্ষা করেচলেছে অঙ্গদপুরের অাট থেকে অাসি সকলে।

এছাড়াও চেক করুন

মুখ্যমন্ত্রীর পাঠানো নতুন বছরের শুভেচ্ছা বার্তায় আপ্লুত দিনহাটার খুদে পড়ুয়ারা

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ আচমকা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছ থেকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা বার্তার চিঠি পেয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.