ধুবুলিয়ায় স্ত্রীকে পুড়িয়ে খুন করে আত্মহত্যার চেষ্টা, গুরুতর জখম দুই কন্যা

Advertisement

স্টিং নিউজ সার্ভিসঃ স্ত্রীকে পুড়িয়ে খুন করে আত্মহত্যার চেষ্টার অভিযোগ উঠলো এক ব্যক্তির অভিযোগ। ঘটনায় গুরুতর জখম দুই নাবালিকা কন্যা।

রবিবার রাত ১০ঃ৩০ মিনিট নাগাদ ঘটনাটি ঘটেছে নদিয়ার ধুবুলিয়া থানার ১৯ নং শারদা পল্লীতে।

Advertisement

পুলিশ জানিয়েছে, মৃতের নাম সীমা বাসফোর (২৩)। আহত দুই কন্যার নাম বিন্দিয়া বাসফোর (৬) ও সান্ধিয়া বাসফোর (৩)। সকলের বাড়ি ধুবুলিয়ার ১৯ নং শারদাপল্লীতে।

সূত্রের খবর, বছর আটেক আগে ধুবুলিয়া টিবি হাসপাতাল এলাকার সীমার সাথে বিয়ে হয় ১৯ নং শারদা পল্লীর রাজা বাসফোরের সঙ্গে। রাজা বাসফোর পেশায় দিনমজুর। বিয়ের পর থেকেই ওই দম্পতির মধ্যে একাধিক বিষয়ে ঝামেলা লেগে থাকতো।

Advertisement

স্থানীয় সূত্রে খবর, গতকাল রবিবার রাত ১০ঃ৩০ নাগাদ তাদের মধ্যে ব্যাপক ঝামেলা হয়। তারই মাঝে রাজা বাসফোর ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার স্ত্রীকে গুরুতরভাবে আঘাত করে কেরোসিন তেল ঢেলে স্ত্রীকে জ্বালিয়ে দেয়। অন্যদিকে, দুই নাবালিকা কন্যাদেরকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুনের চেষ্টা করে নিজেও গায়ে কেরোসিন তেল ঢেলে আত্মহত্যার চেষ্টা করে রাজা বাসফোর।

প্রতিবেশীরা পোড়ার গন্ধ পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। সীমা ও রাজাকে তড়িঘড়ি ধুবুলিয়া প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে গেলে চিকিৎসকেরা সীমাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন এবং রাজাকে কৃষ্ণনগরে শক্তিনগর হাসপাতালে গুরুতর অবস্থায় পাঠানো হয়।

Advertisement

অন্যদিকে, দুই নাবালিকা কন্যাকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে তাদেরকেও ধুবুলিয়া প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তাদের কৃষ্ণনগর শক্তিনগর হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। সেখান থেকে ফের তাদের কলকাতা এনআরএসে পাঠানো হয়।

সীমার ভাই স্থানীয় ধুবুলিয়া থানায় রাজা বাসফোরের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করেছেন।

Advertisement

ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ধুবুলিয়া থানার পুলিশ।

Advertisement